বাড়িজাতীয়কুমিল্লা সিটিতে ভোটগ্রহণ শুরু -চার স্তরের নিরাপত্তাবলয়

কুমিল্লা সিটিতে ভোটগ্রহণ শুরু -চার স্তরের নিরাপত্তাবলয়

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের (কুসিক) নির্বাচনে আজ বুধবার ভোটগ্রহণ চলছে। সকাল ৮টায় এই ভোটগ্রহণ শুরু হয়। চলবে টানা বিকাল ৪টা পর্যন্ত। একজন মেয়র ও ৩৬ জন কাউন্সিলর নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করছেন নগরীর প্রায় সোয়া ২ লাখ ভোটার।

 

এবার ১০৫ কেন্দ্রে ইভিএমের মাধ্যমে ভোট চলছে। বুথ রয়েছে ৬৪০টি।

মালামাল বিতরণের সময় এ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. শাহেদুন্নবী চৌধুরী বলেন, “আমরা সুষ্ঠু ভোট করায় বদ্ধপরিকর। পুলিশ প্রশাসনের সার্কুলার অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

 

প্রতি কেন্দ্রেই পর্যাপ্তসংখ্যক পুলিশ, আনসার রয়েছেন। এছাড়া বিভিন্ন জায়গায় চেক পয়েন্ট করা হয়েছে যাতে কোনও ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে। আমি আশাবাদী, একটি ভালো নির্বাচন হবে। ”

জানা গেছে, নগরীর ২৭ ওয়ার্ডে মোট ভোটার ২ লাখ ২৯ হাজার ৯২০ জন।

 

নারী ১ লাখ ১৭ হাজার ৯২ ও পুরুষ ১ লাখ ১২ হাজার ৮২৬ জন। তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার দু’জন।

১০৮ জন সাধারণ ও ৩৮ জন সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর প্রার্থী। নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করছেন দেশি সাত পর্যবেক্ষক সংস্থা ও গণমাধ্যমকর্মীরা। ভোট গ্রহণ ও ভোটারদের নিরাপত্তায় মাঠে রয়েছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রায় সাড়ে ৩ হাজার সদস্য।

 

চার স্তরের নিরাপত্তাবলয়

 

নির্বাচন নির্বিঘ্ন করতে চার স্তরের নিরাপত্তাবলয় গড়ে তুলেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। মাঠে নেমেছে ২২ প্লাটুন বিজিবি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় বিজিবির সঙ্গে মাঠে রয়েছেন র‌্যাব-পুলিশের সদস্যরা। কেউ কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলার চেষ্টা করলে অ্যাকশনে যাওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে। ভোটগ্রহণের আগের দুই দিন, ভোট গ্রহণের দিন ও ভোটের পর দিন- মোট চার দিন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এই সিটি এলাকায় থাকবে। তবে আনসার বাহিনী মোট পাঁচ দিন নিয়োজিত থাকবে। কুমিল্লা সিটি নির্বাচনের জন্য র‌্যাবের রিজার্ভ টিম সার্বক্ষণিক নিয়োজিত থাকবে। মোবাইল স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে নিয়োজিত প্রতিটি টিমে বিশেষ করে বিজিবির টহল দলে একজন করে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন। মোবাইল কোর্ট পরিচালনা ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ১৩ থেকে ১৬ জুন পর্যন্ত মোট ২৭ জন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন।

 

এছাড়া ১৩ থেকে ১৭ জুন পর্যন্ত নয়জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নির্বাচনী অপরাধ বিচারের দায়িত্বে থাকবেন। নির্বাচন উপলক্ষে ১৪ জুন মধ্যরাত থেকে ভোটের দিন রাত ১২টা পর্যন্ত নির্বাচনী এলাকায় যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। ১৩ জুন মধ্যরাত থেকে ১৬ জুন সকাল ৬টা পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকছে। তবে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী, নির্বাচনী এজেন্ট, দেশি/বিদেশি পর্যবেক্ষক, গণমাধ্যমকর্মী, নির্বাচনে বৈধ পরিদর্শক, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, জরুরি সেবাকাজে মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে না।

 

এছাড়া ১৩ জুন সকাল ৬টা থেকে ১৭ জুন রাত ১২টা পর্যন্ত আগ্নেয়াস্ত্র প্রদর্শন, আগ্নেয়াস্ত্রসহ চলাচলেও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। ভোটকেন্দ্রের ৪০০ গজের মধ্যে কোনও প্রার্থীর নির্বাচনী ক্যাম্প স্থাপন করা যাবে না।

ইউটিউবে আমরা...

 
এএনবি২৪ ডট নেটhttps://anb24.net
প্রকাশক ,মোহাম্মদ মাহামুদুল হাসান।,
আরও পড়ুন

ফেসবুকে আমরা

সর্বশেষ